পরবাসে প্রবাসীর ঈদ

বিজয় বাংলা ডেস্ক
প্রকাশিত ২, মে, ২০২২, সোমবার
পরবাসে প্রবাসীর ঈদ

এম.ফয়সাল আহমাদ (সৌদী আরব)

১. দীর্ঘ এক মাস সিয়াম সাধনার পর সমগ্র বিশ্বে, প্রতিটি দেশের আকাশে ঈদের চাঁদ বয়ে আনে হাসিখুশি আর আনন্দের বাণী। ধনী-গরিব সব এক কাঁধে কাঁধ রেখে সবাই শামিল হন এক কাতারে। ঈদ যেন সবার হৃদয়ে এঁকে দেয় ভালোবাসার বন্ধন! ছুঁয়ে দেয় দিল বাগান। তাছাড়া নিজের পরিবারের সাথে ঈদ উদযাপন করা তো সাগর সেঁচা মুক্তা তুল্য। যার কোনো তুলনাই হতে পারেনা।

২.আমার সৌদী আরবে প্রায় পাঁচ মাস হতে চলেছে, পরিবার আত্মীয় স্বজনদের ছেড়ে এই প্রথম দূর প্রবাসে ঈদ উদযাপন করছি। মায়ের হাতে রান্নার স্বাদের ঘ্রাণ, ও ছোট্ট বড় ভাইবোনদের সঙ্গে ঈদ হচ্ছে না। বাকরুদ্ধ হয়ে যাচ্ছি রীতিমতো, সত্যিই মনের গহীনে দুঃখের যে আগুন জ্বলছে, তার লেলিহান শিখার উত্তপ্ত পরিস্থিতি একজন সন্তান জন্মদায়িনী মায়ের মতো।
সন্তান প্রসবের জন্য মায়েদের তো ত্যাগ তিতিক্ষা অসহনীয়, অবর্ণনীয়। একজন মা ছাড়া এ ব্যথার অনুভূতি, প্যারামিটার সাধারণ মানুষ অনুধাবন করতে পারে না, পারবে না। যেমনটি বলছিলাম মায়েদের প্রসববেদনার কষ্টের উপাখ্যান একজন মা ছাড়া যেমন কেউ বোঝে না। তেমনিভাবে একজন প্রবাসীর পরবাসের অনুভূতি কেমন হয়, যে কখনো প্রবাসে কঠোর শৃঙ্খল দেখেনি তার পক্ষে অনুধাবন করা বহুদূর। ঈদের সারাটা দিন প্রবাসীর মনটা পড়ে থাকে পরিবারের কাছে। প্রবাসে প্রত্যক প্রবাসীর কর্মব্যস্ততার মাঝেও মনটা থাকে দেশে। সবকিছুর পরেই প্রবাসীদের জীবন চলে নিরন্তর। লক্ষ্যের পেছনে অক্লান্ত পরিশ্রম করে এ রেমিট্যান্স যোদ্ধারা। এ জীবনে যখন তারা ব্যর্থতার তিক্ত স্বাদ পায়, তখন চোখ বুঝেও সয়ে যায়।

৩.ঈদের দিনে ইমুতে, হোয়াটসঅ্যাপে বা স্কাইপে স্বজনদের সঙ্গে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করতে হয়। দূর থেকে মোবাইলে বা ল্যাপটপের ভেতরে সদা হাস্যোজ্জ্বল কিছু মানুষ যারা কেবল দূর থেকেই ভালোবাসে, ছুঁয়ে দিতে পারে না! মাঝে মাঝে অবুঝ মনটা ঝাঁপিয়ে পড়ে স্ক্রীনের ওপর। এই স্পর্শহীন ভালোবাসা যে কী করুণ তা কেবল স্বদেশ ছেড়ে আসা মানুষগুলোই বলতে পারবে।

৪. ভিনদেশের মাটিতেই সকল প্রবাসী এক হয়ে পালন করেন ঈদ। ঈদের আনন্দের মাঝে প্রতিটি প্রবাসীর স্মৃতির অ্যালবামে কেবলই ভেসে ওঠে বাংলাদেশের মানচিত্রের ছবি। একেকটি স্মৃতি যেন একেকটি গল্প। দেশে বসে সুন্দর সুন্দর গল্পের ইতি টানা যায়, দেশে বসে প্রবাসের অনুভূতি নেয়া যায় না। কষ্টের হৃদয়ের দহন অনুভব করা যায় না, প্রত্যেক প্রবাসীর রয়েছে অব্যক্ত, নীল কষ্ট। এ যেন সংগ্রামী জীবনযুদ্ধের এক একটি উপাখ্যান। তাছাড়া আজব এক ঈদানুভূতি রয়েছে সৌদী প্রবাসীদের মাঝে। সকলে মিলে একসাথে রান্না করার প্ল্যান নিচ্ছে। ঈদের দিনে সবাই ইচ্ছেমতো খাবে ও পরিবারের মাঝে শেয়ার করবে। এমনটাই উপলব্ধি করছি।

শেয়ার করে ছড়িয়ে দিন
  • 42
    Shares