সাবেক প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট এবাদুর রহমান চৌধুরীর ইন্তেকাল, বৃহস্পতিবার বড়লেখায় জানাজা

বিজয়বাংলা ডেস্ক
প্রকাশিত ৬, সেপ্টেম্বর, ২০২৩, বুধবার
সাবেক প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট এবাদুর রহমান চৌধুরীর ইন্তেকাল,  বৃহস্পতিবার বড়লেখায় জানাজা

এম. এম আতিকুর রহমান :
বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদি দল বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য, মৌলভীবাজার জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি, সাবেক প্রতিমন্ত্রী ও সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট এবাদুর রহমান চৌধুরী (৭৮) আজ ৬ সেপ্টেম্বর বুধবার বিকেল তিনটায় ঢাকায় ইবনে সিনা হাসপাতালে ইন্তেকাল করেছেন (ইন্না লিল্লাহি…রাজিউন)। দীর্ঘদিন ধরে তিনি বিভিন্ন জটিল রোগে ভুগছিলেন। মৃত্যুকালে তিনি তিন কন্যা, জামাতাসহ অসংখ্য আত্মীয়-স্বজন ও গুনগ্রাহী রেখে গেছেন।

বর্ষিয়ান সাবেক পার্লামেন্টারিয়ান অ্যাডভোকেট এবাদুর রহমান চৌধুরী মৌলভীবাজার জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান, মৌলভীবাজার-১ আসনের চার বারের সাবেক সংসদ সদস্য, সাবেক দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী এবং পরবর্তীতে তথ্য মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি হিসেবে তৎকালীন সরকারের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেন। তিনি সংসদ সদস্য ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী থাকাকালীন তার নির্বাচনী এলাকা মৌলভীবাজার-১ (বড়লেখা ও জুড়ী) আসনে অভূতপূর্ণ উন্নয়ন করেন। শিক্ষা -যোগাযোগসহ সার্বিক উন্নয়নের ক্ষেত্রের তাঁর অবদান অনবদ্য ।

তাঁর পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, বুধবার বাদ মাগরিব ঢাকার লালমাটিয়া ‘সি’ ব্লক জামে মসজিদে মরহুম অ্যাডভোকেট এবাদুর রহমান চৌধুরীর প্রথম জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। বৃহস্পতিবার সকালে ঢাকা থেকে গ্রামের বাড়ি নেওয়ার পথে মৌলভীবাজার শহরে দ্বিতীয় জানাজা ও সকাল এগারোটায় তাঁর নির্বাচনী এলাকা বড়লেখার পাথারিয়া মডেল সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে তৃতীয় জানাজা শেষে নিজ গ্রাম দক্ষিণভাগ দক্ষিণ ইউনিয়নের গাংকুলে দাফন সম্পন্ন করা হবে।

অ্যাডভোকেট এবাদুর রহমান চৌধুরী ঊনসত্তরের গণঅভ্যুত্থান থেকেই সক্রিয় রাজনীতি শুরু করেন। মৌলভীবাজার জেলা বারে তিনি আইন পেশা শুরু করলেও পরবর্তীতে তিনি সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী হিসেবে প্র্যাক্টিস শুরু করেন। তিনি ১৯৮৮ সালে চতুর্থ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মৌলভীবাজার-১ আসন থেকে জাতীয় পার্টির প্রার্থী হিসেবে প্রথমবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। একই আসন থেকে তিনি পুনরায় জাতীয় পার্টির প্রার্থী হিসেবে ১৯৯১ সালের পঞ্চম, ১৯৯৬ ও ২০০১ সালে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের প্রার্থী হিসেবে ষষ্ঠ ও সপ্তম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে পুনরায় বিএনপির প্রার্থী হিসেবে জাতীয় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। তিনি চারদলীয় জোট সরকারের আমলে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী এবং তথ্য মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। এ সময় তিনি এলাকার সর্বক্ষেত্রে ব্যাপক উন্নয়ন করেন। ২০০৮ সালের নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপি মনোনিত প্রার্থী অ্যাডভোকেট এবাদুর রহমান চৌধুরী আওয়ামী লীগ মনোনিত প্রার্থী শাহাব উদ্দিনের নিকট পরাজিত হন। ২০১৮ সালের একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপির দলীয় মনোনয়ন পেলেও অসুস্থতা জনিত কারণে তিনি মনোনয়ন প্রত্যাহার করে নেন।
ক্ষণজন্মা এ কিংবদন্তির ইন্তেকালে এলাকায় শোকের ছায়া বিরাজমান।

শেয়ার করে ছড়িয়ে দিন