খেলাফত মজলিসের প্রতিষ্ঠাকালীন অঙ্গীকার : মাওলানা এমদাদুল হক আড়াই হাজারী (রহঃ)।

বিজয়বাংলা ডেস্ক
প্রকাশিত ৪, মার্চ, ২০২২, শুক্রবার
<strong>খেলাফত মজলিসের প্রতিষ্ঠাকালীন অঙ্গীকার : মাওলানা এমদাদুল হক আড়াই হাজারী (রহঃ)।</strong>

বিজয় বাংলা অনলাইন ২২মে ভোরের সূর্যোদয়ে আমি চোখের সামনে
আলোকোজ্জ্বল সকাল দেখতে পাইনি। আমার
চোখজুড়ে কান্নার ঢল,মনের গহীনে বেদনার ঢেউ
আমাকে অস্থির করে তোলে।
বিকেল ৩টা পর্যন্ত ঢাকায় অনুষ্ঠিত দুটি মজলিসে শূরার অধিবেশনের কোনটাতেই না গিয়ে কী করে এক সাথে থাকা যায় সে ভাবনায় আচ্ছন্ন ছিলাম।
যখন শুনতে পেলাম জামেয়া রাহমানিয়ায় গুটিকতেক মজলিসে শূরার সদস্যদের নিয়ে একটি কমিটি ঘোষিত হয়েছে এবং মজলিসে শূরার দুই তৃতীয়াংশ সদস্য রুপসী
বাংলা হোটেল মিলনায়তনে বসে আছেন।
তখন আমি স্থির সিদ্ধান্তে উপনীত হই যে,খেলাফত মজলিসের প্রতিষ্ঠাকালীন অঙ্গীকার হাতমী নয় শূরায়ী ফায়সালা এবং উলামা মাশায়েখ ও দ্বীনদার বুদ্ধিজীদের সমন্বয়ে প্রতিনিধিত্বকারীদের সাথে কাজ করবো। ৪৫তোপখানাস্থ মজলিসে শূরার অধিবেশনে হাজির হয়ে দেখলাম,অশ্রোভেজা চোখ,দৃঢ় প্রত্যয়ী মনোভাব উলামা মাশায়েখ ও বুদ্ধিজীবিদের সন্বয়ের সংকল্প,সর্বাবস্থায় শূরায়ী ফায়সালার বলিষ্ঠ উচ্চারন,তখন আমি খেলাফত মজলিসের মূলস্রোতধারার সাথে নিজেকে সম্পৃক্ত করলাম। বন্ধুবর মাওলানা আবদুর রব ইউসুফী সাহেব আমাদেরকে মাওদুদীয়াত ও ভ্রান্ত মতবাদের আক্বিদা পোষণকারী ভ্রষ্ঠ আলেম বলার ধৃষ্ঠতা দেখিয়েছেন। অপপ্রচার চালাচ্ছেন। অথচ শাইখুল হাদীস সাহেব বলেছেন এরা আমারই লোক। খেলাফত মজলিস মওদুদীয়াতে বিশ্বাস করে না। এখানে মওদুদীয়াত ও শিয়াঈয়তের কোনো স্থান নেই। এসব কথা পরাজিত স্বার্থান্বেষী মহলের ঘৃণ্য মানসিকতার পরিচায়ক। এরা সংগঠনের নিয়ম,নীতি,গঠনতন্ত্র লংঘন করে নিজেদের স্বার্থ হাসিল করতে চেয়েছিলো।সচেতন মজলিসে শূরার সদস্যদের কারনে তারা ব্যর্থ হয়েছে, আগামী দিনেও তারা ব্যর্থ হবে ইনশাআল্লাহ্।
খেলাফত মজলিস আজ থেকে প্রায় সাড়ে পনেরো
বছর আগে যে লক্ষ্য,উদ্দেশ্য নিয়ে গঠিত হয়েছিলো এবং গঠন কালে আমরা যারা ছিলাম, এখনও আমরা একসাথে আছি। খেলাফত মজলিস সময়ের ব্যবধানে আজ স্বার্থান্বেষীদের গোপন ষড়যন্ত্রের চোরাবালিতে আক্রান্ত হচ্ছে একথা সত্য তবে কোনো বাধাই এ কাফেলার গতিকে থামাতে পারবেনা। আরো দুর্বার হবে ইনশাআল্লাহ্
উলামা মাশায়েখ ও দ্বীনদার বুদ্ধিজীবিদের সমন্বয়ে
খেলাফত মজলিস একটি সার্বজনীন সংগঠনে পরিণত হবে বিভ্রান্তি,মিথ্যা প্রচারণায় কর্ণপাত না করে ইখলাছ,খুলুছিয়াতের সাথে ময়দানে কাজ চালিয়ে যেতে হবে। খেলাফত প্রতিষ্ঠার এ প্রচেষ্ঠার
মধ্যেই রহমত বরকত মাগফিরাত নিহিত রয়েছে।

শেয়ার করে ছড়িয়ে দিন
  • 68
    Shares