বিএনপির গণসমাবেশ : পরিবহন ধর্মঘটের দ্বিতীয় দিনে অচল রাজশাহী

বিজয়বাংলা ডেস্ক
প্রকাশিত ২, ডিসেম্বর, ২০২২, শুক্রবার
<strong>বিএনপির গণসমাবেশ : পরিবহন ধর্মঘটের দ্বিতীয় দিনে অচল রাজশাহী</strong>

রাজশাহীতে পরিবহন ধর্মঘটের প্রথম দিন রাতে ফাঁকা রাস্তা – ছবি : সংগৃহীত

বিজয় বাংলা অনলাইন | রাজশাহী বিভাগে অনির্দিষ্টকালের জন্য ডাকা পরিবহন ধর্মঘট অব্যাহত রয়েছে। ধর্মঘটের দ্বিতীয় দিন শুক্রবার (২ ডিসেম্বর) সড়ক পথে রাজশাহী বিভাগের আটটি জেলার সাথে রাজধানী ঢাকাসহ দেশের অন্যন্য স্থানের পরিবহন যোগাযোগ ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। সড়ক পথের পুরো যোগাযোগ ব্যবস্থা অচল হয়ে পড়েছে। ধর্মঘটের কারণে আন্তঃজেলা ও দূরপাল্লার রুটের বাস চলাচল বন্ধসহ সব ধরনের যানবাহন বন্ধ থাকায় দুর্ভোগে পড়েছেন বিভিন্ন গন্তব্যের যাত্রীরা।

তবে রাজশাহীতে শনিবারের (৩ ডিসেম্বর) গণসমাবেশে লোক সমাগম ঠেকাতে এবং গণসমাবেশ ব্যর্থ করতেই এ পরিবহন ধর্মঘট ডাকা হয়েছে বলে দাবি করছেন বিএনপি নেতারা। এর আগে বৃহস্পতিবার (১ ডিসেম্বর) সকাল ৬টা থেকে রাজশাহী বিভাগের আটটি জেলায় পরিবহন ধর্মঘট শুরু হয়েছে।

মহাসড়কে থ্রি-হুইলার বন্ধসহ ১০ দফা দাবিতে পরিবহন মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদ এ ধর্মঘটের ডাক দিয়েছে। এতে করে সীমাহীন দুর্ভোগে পড়েছেন সাধারণ মানুষ। দু’দিন থেকে গন্তব্যে যেতে নানা ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে যাত্রীদের। বিকল্প যানবাহনে করে গন্তব্যের উদ্দেশে রওনা দিলেও এর জন্য গুণতে হচ্ছে বাড়তি ভাড়া।

রাজশাহী নগরীর শিরোইল বাসস্ট্যান্ড, ভদ্রা বাসস্ট্যান্ড, গোরহাঙ্গা বাসস্ট্যান্ড, বিন্দুর মোড় বাসস্টপেজ ও বিলশিমলা বাসস্টপেজে গিয়ে দেখা গেছে, পরিবহন ধর্মঘটের কারণে সাধারণ যাত্রীরা ঘণ্টার পর ঘণ্টা ধরে বিকল্প যানবাহনের জন্য অপেক্ষা করছেন। ক্লান্ত হয়ে অনেকে রাস্তার পাশেই শুয়ে পড়ছেন। কেউ কেউ ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা ও সিএনজিচালিত অটোরিকশা করেই দূর গন্তব্যের উদ্দেশে রওয়ানা দিচ্ছেন। তবে এর জন্য যাত্রীদের নির্ধারিত ভাড়ার চেয়ে দুই থেকে তিনগুণ ভাড়া বেশি গুণতে হচ্ছে। তারা অবিলম্বে এ পরিবহন ধর্মঘট প্রত্যাহারের দাবি জানান।

তবে পরিবহন নেতাদের দাবি, মহাসড়কে থ্রি-হুইলার ও পুলিশি হয়রানি বন্ধে বারবার বলা হলেও সরকার পক্ষ থেকে কোনো সাড়া মেলেনি। তাই সেবামূলক পেশা হলেও দাবি আদায়ে তারা ধর্মঘটে যেতে বাধ্য হয়েছেন।

রাজশাহী বিভাগীয় পরিবহন মালিক সমিতির সভাপতি সাফকাত মঞ্জুর গণমাধ্যমকে বলেন, হাইকোর্টের নির্দেশ অমান্য করে মহাসড়ক ও আঞ্চলিক মহাসড়কে থ্রি-হুইলার চলাচল করছে। এগুলো বন্ধসহ ১০ দাবি রয়েছে। দাবি পূরণ না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চলবে।

বিএনপি নেতাদের অভিযোগ, রাজশাহীতে শনিবারের (৩ ডিসেম্বর) গণসমাবেশে ব্যাপক লোক সমাগম ঠেকাতেই এ পরিবহন ধর্মঘটের ডাক দেয়া হয়েছে। শুধু তাই নয়, বিকল্প পরিবহনে বিভিন্ন জেলা থেকে নেতাকর্মীরা এলেও পথে পথে গাড়িতে তল্লাশি করছে পুলিশ। রাস্তায় গাড়ি আটকে ফেরত পাঠানো হচ্ছে।

রাজশাহী বিভাগীয় গণসমাবেশের দলনেতা, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ও সাবেক মেয়র মিজানুর রহমান মিনু নয়া দিগন্তকে বলেন, রাজশাহীতে ৩ ডিসেম্বরের গণসমাবেশে ব্যাপক লোক সমাগম ঠেকাতে এবং গণসমাবেশ ব্যর্থ করতেই এ পরিবহন ধর্মঘট ডাকা হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, এরপরও রাজশাহী বিভাগের আটটি জেলা থেকেই তাদের নেতাকর্মীরা পুলিশি বাধা উপেক্ষা করে বিকল্প পরিবহনে রাজশাহী আসছেন। সরকার যতই চেষ্টা করুক তাদের গণসমাবেশে জনস্রোত ঠেকাতে পারবে না। শত বাধা উপেক্ষা করে বিএনপি নেতাকর্মীরা গত বুধবার সকাল থেকে রাজশাহীতে আসছেন। তারা গণসমাবেশস্থলের পাশে শাহমখদুম ঈদগাহ মাঠে ও আশপাশের ফাঁকা জায়গায় খোলা আকাশের নিচে রাত যাপন করছেন।

শেয়ার করে ছড়িয়ে দিন
  • 12
    Shares